1. admin@everydaybd24.com : admin :
চট্টগ্রাম বন্দরের পরিচিতি । » এভরিডে বিডি ২৪
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বার্বারোসা সিরিজ থেকে ইসলামি ইতিহাস বিষপানে বিদায় গৃহবধূ ২৩ জুলাই থেকে ২৩ শর্তের কঠোর বিধিনিষধ— যা যা বন্ধ, যাদের জন্য      প্রেম করে জিম্মি করে তারা! চট্টগ্রামে করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের কারণে চাপ বেড়েছে হাসপাতালে চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় মাটির মটকার ওপর ৩০০ বছরের পুরনো ভবন! আসন্ন পবিত্র কোরবানির ঈদে ৮ থেকে ১০ ঘণ্টার মধ্যে নগরীতে জবাইকৃত পশুর বর্জ্য অপসারণ করা হবে। বন্দর নগরীর চট্টগ্রাম নিয়ন্ত্রণে সিএমপির উদ্যোগ পুরো চট্টগ্রাম নগরে আসছে সিসি ক্যামেরার আওতায় ঔষধ বিক্রি করবো না ক্যা‌শমেমো দিব না করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ১ জুলাই (বৃহস্পতিবার) সকাল ছয়টা থেকে ৭ জুলাই মধ্যরাত পর্যন্ত সারা দেশে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। গণপরিবহন বন্ধ, পণ্যবাহী যানে যাত্রীর ভিড় দেশে করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড: ৩ দিনের সীমিত লকডাউনের প্রজ্ঞাপন জারি কর্ণফুলীর বুকে পলিথিনের চর! ভোগান্তির শেষ নেই,মেগাপ্রজেক্টের বলি চৌমুহনী-বারেক বিল্ডিং সড়ক তোমাকে ছুঁয়ে আছে অন্য একটা মানুষ, তা কেমন করে সহ্য করি বলো? বন্ধ হচ্ছে বায়েজিদ-ফৌজদারহাট বাইপাস সড়ক ইলিশ মাছ খেতে হবে১৮০০ টাকায় ! “এক বাটি ডাল মানভেদে ১০০-২০০ টাকা” সোনারগাঁও জামপুর গ্রামে বড় ভাই আপন ছোট ভাই এর ছুরির আঘাতে খুন! শক্তিশালী হচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ‘যশ’, বাড়লো সতর্ক সংকেত আজ_কেন_এলে_তুমি ??????? যেখানে সেখানে ভুলভাল কল দিলে যা হয় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক যেন ফুলের বাগান খুন শেষে সাবেক এমপিকে কল ‘স্যার ফিনিশড’ ত্রিশা‌লে আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে শোক সভা সাংবাদিক রোজিনাকে ৫ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ চাকরির আগে ও পরে তার চেহারার পরিবর্তন দেখুন। মিঠানালায় ফাঁস দিয়ে বৃদ্ধের আত্মহত্যাঃ মাশরাফির অধিনাকত্বে মাঠে নামছে আশরাফুল, দেখেনিন চূড়ান্ত স্কোয়াড বাড়ছে মানুষের ভিড়! কারণ কবর থেকে বেড়িয়ে আসছে সুগন্ধি যুবদল নেতা মোহনের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছেন ছাত্রদলের সদস্য সচিব জহিরুল যুবদল নেতা মোহনের মুক্তি দাবি করেছেন উপজেলা মৎস্যজীবীদলের সাধারণ সম্পাদক সামির হোসাইন রাতের আঁধারে মহাসড়কে চলেছে দূরপাল্লার বাস ধান কেটে কৃষকের ঘরে তুলে দিলো যুবলীগ। তরমুজ ফলটি যেন ক্রেতাদের নাগালের বাহিরে। প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ২০০ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী উপহার। শায়খুল হিন্দ মাহমূদ হাসান দেওবন্দী রহ.-এর লাশ এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য তা যানলে আপনার ও চোখে পানি চলে আসবে এই বাংলার আজব এক এম পি’র কাহিনী ! সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের অনুদান পেলেন ২০০ সাংবাদিক ব্রিটিশ লেবার পার্টির হয়ে কাউন্সিলর পদে লড়বেন পুষ্পিতা : মৌলভীবাজারের সন্তান ছোটদের ঝগড়ার জেরে গৃহবধূ ঘুন হতদরিদ্রদের পাশে ত্রিশালের নুরুদ্দীন খান ওয়েলফেয়ার এভরিডে বিডি ২৪ এর চট্টগ্রামের সাহসী চীফ রিপোর্টার মনির উদ্দীন এর করোনা পজেটিভ প্রবীন ব্যবসায়ী নিরঞ্জন বনিক করোনা সংক্রমনের কারনে মৃত্যু। ইফতার বিক্রিকে কেন্দ্র করে শ্রীমঙ্গল কালীঘাট রোডে পুলিশ সহ ৫ জন আহত । বেদে জনগোষ্ঠীর মাঝে ছাত্র ইউনিয়নের উদ্দ্যেগে ত্রান বিতরণ। চট্টগ্রাম নগরীর ব্যস্ততম ও বাণিজ্যিক এলাকার প্রধান সড়ক বারেক বিল্ডিং এর মোড় থেকে বাংলাবাজার, মাঝির ঘাট হয়ে সদরঘাট মোড় পর্যন্ত প্রধান রাস্তাটির বেহাল অবস্থা ! দেশের একদিনে ইতিহাসে সর্বোচ্চ মৃত্যু ও সনাক্তের রেকর্ড় চট্টগ্রাম বন্দরের বার্ষিক আয়ের ১% সিটি কর্পোরেশন কে দিতে হবে। মন্ত্রীসভায় আইন পাশ চিত্রনায়িকা নুসরাত ফারিয়াকে আর কখনোই দেখা যাবে না গোলাম রাব্বানী করোনায় আক্রান্ত ! ৯ মাসে সর্বোচ্চ আক্রান্ত,মৃত্যুও বৃদ্ধি তারা আমাকে পাগল বানায় দিছে,সুইসাইড নোট এ জেনিথ আপুর লেখা ছে’লেকে নিয়ে ব্যবসায় নামলেন চিত্রনায়িকা অ’পু বিশ্বা’স তিন দিনের সফরে ভুটানের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীঃডা. লোটে শেরিং প্রয়াত সাধারণ সম্পাদক আঃ হাই ভূইয়া সাহেবের পরিবারের প্রতি অবহেলা ! মান্না কিভাবে মা’রা গেছে মানুষ এ বছরই জানবে:স্ত্রী শেলী ত্রিশাল থানা পুলিশের উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ ও র‍্যালি করোনায় আক্রান্ত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান স্ত্রী সহ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বিরোধীদলীয় হুইপ সংসদ সদস্য মিসবাহ কালিঘাট ইউনিয়ন সদস্য সহ ইউপি চেয়ারম্যান এর ভাই সরকারী বরাদ্দ কৃত টাকা আত্মশ্বাস। ময়মনসিংহের ত্রিশালে পখশিশু কল্যাণ ফাউন্ডেশনের র‌্যালি আলোচনা সভা সময়ের কাছে হেরে গেলেন,না ফে’রার দেশে মওদুদ আহমদ> যেভাবে আইনজীবী থেকে দেশের প্রধানমন্ত্রী ময়মনসিংহের ত্রিশালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনে প্রস্তুতি সভা আগুন লেগে মোঃজাকের হোসেনের এক ছেলে দুই মেয়ে আগুনে দগ্ধ হয়ে নিহত ময়মনসিংহের ত্রিশালে ভোক্তা অধিকার দিবস পালিত চোরাই মোটরসাইকেল সহ আটক ১ পল্লীকবি জসীম উদ্দীন, বিনম্র শ্রদ্ধা উনার স্মৃতির প্রতি বয়স্ক নারীর বিষপানে রহস্যময় মৃত্যু। “গুম নাকি খুন” ডিম বিক্রেতা রুবেল কে পাওয়া যাচ্ছে না শ্রীমংগলে ২দিন ব্যাপি শিবরাত্রি অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। শ্রীমংগল থানার ১১জন কর্মকর্তা একসাথে বদলি ৫লাখ টাকার নিষিদ্ধ পলিথিন, কাভার্ডভ্যান সহ আটক ২ কুলাউড়ার ব্রাহ্মণবাজারে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার। পরিবেশ দূষণ কারী অবৈধ পলিথিন সহ আটক ৩ সব মেয়েদের কাছেই প্রেমিকরা দুষ্ট তাইনা..? অপারেশন সার্চ দ্যা কালপ্রিট” ১৭ ঘন্টার রুদ্ধশ্বাস অভিযানে ধর্ষক আটক! মাদক কারবারী আটক ৯৭ পিস ইয়াবা সহ দুর্নীতি মামলায় হাজী সেলিমের ১০ বছর সাজা বহাল: হাইকোর্ট পৌরসভা ও উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিবে না বিএনপি অভিনেতা নায়ক শাহীন আলম আর নেই ‘আলোয় আলো’ প্রকল্পের ৮ই মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস ২০২১ উদযাপন চট্টগ্রাম বন্দরের পরিচিতি । চ্যালেঞ্জঃ_দ্যা_হিডেন_মিনিং_অব_লাইফ পরিচালক আমাদের তার ইচ্ছে মতো ব্যবহার করে: দীঘি! একটা মেয়ে কষ্ট পেয়ে। নিজের জীবনকে তিনভাবে এগুতে পারে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে জয়বাংলা সাইকেল শোভাযাত্রা ১১৬ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার আটক ২ জন! চা শ্রমিক জীবনমান উন্নয়নে চেক প্রদান করেন। দিন দিন রোহিঙ্গারা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে! লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে “প্রতারক মহিলা আউলিয়া” সাবেক চিফ হুইপ অনুমিত সংসদীয় কমিটির সভাপতির শোক বার্তা সব ভুলে অবশেষে আপন ঠিকানায় ফিরছেন অ’পু বিশ্বা’স! প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম আর নেই ! বহুল আলোচিত মাদক কারবারী আনোয়ার আটক। শতবার্ষিকী উপলক্ষে শ্রীমঙ্গল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২১ অনু্ষ্ঠিত। জাতীয়তাবাদী মৎসজীবী দলের ৪২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত বড়লেখার সুজাউল কমিউনিটি ক্লিনিকে চুরি সংঘটিত। রিভলভার ও ২৬ টি জিহাদি বই উদ্ধার আটক ১ নায়িকা “সাহারাকে” আর দেখা যাবে না ! শ্রীমঙ্গল ভোটার দিবস পালিত পাতলা চুল ঘন করার উপায় জাতীয় বীমা দিবস পালিত ২০২১ইং উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ইয়াবা ও জাল টাকা সহ আটক ১ অসাধারন পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ রসুন এলাচে যত গুণ আছে বড়লেখা উপজেলা নিশচা শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন। মোড়ক উন্মোচন ও প্রকাশনা অনুষ্ঠান ২০২১ খ্রি. মৃত্যুকে খুব কাছ থেকে দেখা হল: বুবলী বীরমুক্তিযোদ্ধা আছকির খানের অকাল মৃত্যু ! দুর্ধর্ষ অভিযানে ৪৭ বোতল ফেন্সিডিল বোতল সহ আটক ১জন। দুর্ধর্ষ অভিযানে ৫০ লিটার বাংলা ও বিদেশি মদ সহ গাড়ি ও আটক ২ জন ! “নাসিরের” টার্গেট ছিল উচ্চবিত্ত পরিবারের মেয়েরা, হাতিয়েছেন কোটি কোটি টাকা! গোয়েন্দা বিভাগের অভিযানে মাদক কারবারী আটক! ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ১জন আসামী গ্রেফতার অস্ট্রেলিয়া ওপেনের রাজা জোকিভিচ: রাহেলা হযরত মডেল স্কুলে প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত শ্বাসরুদ্ধ অভিযান চালিয়ে ৩টি গাড়ি ও ১টি মোটরসাইকেল উদ্ধার। ত্রিশাল অনলাইন প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে ভাষা শহীদদের স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলি ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতের টি-টোয়েন্টি দল ঘোষণা: ফুটবল ফাইনাল টুর্নামেন্টে বিজয়ী মধুপুর একাদশ স্পোটিং ক্লাব পেট্রোল পাম্প নাকি মদের গোডাউন সাকিবকে কিনে নিলো কেকেআর “৩ কোটি ২০ লাখ রুপিতে” ! তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমি ভবন ভিত্তিপ্রস্তর অনুষ্ঠানে আব্দুস শহিদ এমপি। নতুন ২টি রাস্তার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপাধক্ষ্য আব্দুস সহিদ এমপি। গোপনে ফোনে কে কী বলল, তা প্রচার করা সাংবাদিকতা নয়’ আল জাজিরা আমার ভাইদের বিরুদ্ধে অসৎ উদ্দেশ্যে অপপ্রচার চালিয়েছে: সেনাপ্রধান ময়মনসিংহের ত্রিশাল পৌরসভায় নৌকাকে হটিয়ে তৃতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী এবিএম আনিসুজ্জামান ভালোবাসার দিনে স্বামীর কিডনিতে প্রাণ রক্ষা স্ত্রীর! প্রাথমিক শিক্ষক সুরঞ্জিতের প্রেম -প্রতারণা, বিয়ে ও অবৈধ সম্পর্ক প্রতারণার শিকার হয়ে ন্যায়বিচারের আশায় শিল্পী। এনাম ডেন্টাল কেয়ারের পক্ষ থেকে অভিনন্দন শ্রেষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোস্তাফিজুর রহমানকে নবনির্বাচিত ৪ পৌর মেয়রের মন্ত্রী সাহাব উদ্দিনের সাথে সৌজন্যে সাক্ষাত। অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী ও দুই সন্তানকে একসাথে হারিয়ে কান্না থামছে না মাসুদুরের বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন ত্রিশাল উপজেলা শাখার আহবায়ক কমিটি গঠন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থাতা কামনায় ও নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবদলের সভাপতি মোঃশহিদুল ইসলাম টিটুর জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল আয়োজন করা হয় আইডি এলসি-প্রথম আলো ট্রাস্ট ‘ অদ্বিতীয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত। ময়নাতদন্তের জন্য র্দীঘ আড়াই বছর পর মৃতদেহ উত্তোলন ময়মনসিংহের ত্রিশালে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ আমি গুণ্ডা-মাস্তান থেকে চেয়ারম্যান হয়েছি: যারা মাহিফল করছে তাদের খুন করবো , লাশ ও পাবিনা! প্রধানমন্ত্রীর উপহার সরুপ বাইসাইকেল কুলাউড়ার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ৩০জন শিক্ষার্থী। মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে গৃহ বধূর লাশ উদ্ধার কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল  ইসলামের লিফলেট বিতরণ ও গণসংযোগ ময়মনসিংহের ত্রিশালে করোনা টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন ময়মনসিংহের ত্রিশালে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রযুক্তি দলের তিনটি উপজেলার কমিটি ঘোষণা। নোয়াগাও ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের “মোসা: মরিয়ম মেম্বারনীর ছেলে” মাদক সম্রাট ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সভা ও বিশাল মানব বন্ধন গোলাম মোস্তফা রাজা মিয়ার মৃতদেহ মৃত্যুর আড়াই বছর পর ময়না তদন্তের জন্য উত্তোলন করা হবে। আজ সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ৪র্থ মৃত্যু বার্ষিকী- জমজ দুইবোনকে বিয়ে করলেন জমজ দুই ভাই ময়মনসিংহের ত্রিশালে ব্লাড ডোনেশন ক্লাবের উদ্যোগে গ্রুপ সম্পন্ন সু চিকে ১৪ দিনের রিমান্ডে নিলো মিয়ানমারের পুলিশ নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে সফ্ট লোন বিতরণ আর নয় দুরে এখন থেকে স্মার্টফোন সহ সকল প্রকার মোবাইলের সার্ভিসিং করাতে পারবেন: জহিরুল বিকাশ এন্ড মোবাইল সেন্টারে ভাষার মাসের শুরুতে জার্নাল ব্যবস্থাপনা পদ্ধতির ওয়েবসাইট উদ্বোধন পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হচ্ছেন ছাত্রলীগ নেতা রিজভী! ত্রিশালের পোড়াবাড়িতে রানীগঞ্জ পাঠাগার ভবনের কাজ উদ্বোধন ১০ লাখ ! ১ দিনে মেহজাবিনের চিত্রনায়ক মান্না বেঁচে থাকলে শাকিব খান এই পর্যায়ে আসতে পারতেন না। বললেন চিত্রনায়ক কাজী মারুফ ভিসি আক্তারুজ্জামান ও ডিন সাদেকা হালিমের ব্যক্তিগত আ’ক্রো”শের শি’কার সামিয়া রহমান এখন মৃ’ত্যু শ’য্যায়,দাবি বাবার ইভিএমে সিষ্টেমে একজন আরেকজনের ভোট দেওয়ার সুযোগ নেই: নওফেল চট্টগ্রামে শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও অর্জনের জয় হয়েছে: কাদের রায়পুরের খাল-নদী দস্যুদের দখলে! কাউন্সিলর হয়ে একটি আদর্শ ওর্য়াড প্রতিষ্ঠা করতে চায় জুয়েল চৌধুরী। জাককানইবি’র সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ২য় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ময়মনসিংহের ত্রিশালে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় প্রতিবাদ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ত্রিশালে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেলো ভূমি ও গৃহহীন ৫০টি পরিবার ৭১”এর মতোই করোনার বিপদে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে ভারত: পররাষ্ট্রমন্ত্রী দাদার শেষ ইচ্ছা পূরন করতে ১ লাখ ৪৫ হাজার টাকা দিয়ে হেলিকপ্টারে বিয়ে! যদিও সংসারে অভাব লেগে আছে। ত্রিশালের এমপি করোনায় আক্রান্ত ট্রাফিক সার্জেন্টকে পেটালেন এক যুবক কাঠ দিয়ে চট্রগ্রাম সিটি নির্বাচনে ডা: শাহাদাৎ হোসেন ভাইয়ের নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় ত্রিশালে পাশে দাড়াও সংগঠনের শীতবস্ত্র বিতরণ ত্রিশালে পৌর নৌকার মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব নবী নেওয়াজ সরকারের মত বিনিময় ময়মনসিংহের ত্রিশালে বাস-সিএনজি সংঘর্ষে এক নারী নিহত ৫ জন গুরুতর আহত বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৮৫ তম জন্মবার্ষিকী সোনারগাঁ ছাত্রদলের মিলাদ বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৮৫ তম জন্মবার্ষিকী অবশেষে ভেঙ্গেই গেলো সে’ই ভাই’রাল হওয়া প্রবাসীর স্ত্রী’র সংসার স্বাস্থ্যবিধি মেনে আংশিক ক্লাস শুরু,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলছে ফেব্রুয়ারিতে! তাপমাত্রা বাড়বে কাল থেকে, শৈত্যপ্রবাহ থাকবে আরো ৩ দিন সোনারগাঁ উপজেলা ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দদের শ্লোগানে প্রকম্পিত হলো শহরের বিভিন্ন সড়ক !!! ধানের শীষের হ্যাটট্রিক তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু,হারাল নৌকাকে !!! কাদের মির্জাকে অভিনন্দন জানালেন ওবায়দুল কাদের,পুনরায় বিজয়ী কাদের মির্জা এতিম ও দুস্থদের মাঝে কম্বল এবং প্যাকেট খাবার বিতরন “জেলা বিএনপির মানববন্ধন” সোনারগাঁও উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মান্নানের পক্ষে ব্যাপক শোডাউনঃ জেলা বিএনপির মানববন্ধনে সোনারগাঁও উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মান্নানের পক্ষে থানা মৎস্যজীবী দলের ব্যাপক শোডাউ ! জেলা বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে সোনারগাঁও কলেজ শাখা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে যোগদান গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হল আজ সোনারগাঁ জামপুর ইউনিয়নের বশিরগাঁও । রেজাউল ক‌রি‌মের নেতৃ‌ত্বে নগরীর ১১, ২৫ ও ২৬ নং ওয়া‌র্ডে আঃ লীগ দলীয় প্রার্থী‌দের সমর্থ‌নে বিশাল গনসং‌যোগ। নোয়াগাঁও ইউনিয়ন ৩নং ওয়ার্ড যুবদলের পরিচিতি সভা চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সংঘাতপূর্ণ হয়ে উঠেছে সহিংসতার আশংকা “গণবন্ধু”উপাধি দিলো যুব অধিকার পরিষদ, (ভিপি নুরকে)! বাংলাদেশ থেকে পলিমাটি নিতে আগ্রহী মালদ্বীপ সংঘাতে জড়িয়ে পড়ছেন চসিক নির্বাচনের প্রার্থীর সমর্থকরা, পুলিশ প্রশাসনের দ্বিমুখী ভূমিকা ফেসবুকে আমার কোনো অ্যাকাউন্ট নেই : শাবনূর সোনারগাঁয়ে ছাত্রদলের বিক্ষোভ তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে সরকারী সোনারগাঁও কলেজ ছাত্রদলের বিক্ষোভ আওয়ামী লীগে অস্বস্তি ও বিরম্বনা বাড়ছে সৃজিত খুব প্রিয় আমার , মিথিলার সাথে নিয়মিত যোগাযোগ হয়: তাহসান ইসির পদত্যাগের দাবিতে না’গঞ্জ জেলা বিএনপির মানববন্ধন ও জোরালো কর্মসূচি রাজনৈতিক মামলায় আদালতে সোনারগাঁ বিএনপি ও যুবদলের নেতাকর্মীরা দিতে হচ্ছে হাজিরা। বুবলীর কন্যা সন্তানের বাবা হলেন শাকিব!


চট্টগ্রাম বন্দরের পরিচিতি ।

মোঃ কামাল হোসেন চট্টগ্রাম প্রতিনিধি
  • সময়: মঙ্গলবার, ৯ মার্চ, ২০২১
  • ৩৮০ বার পঠিত
সংবাদটি শেয়ার করুন: ধন্যবাদ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

চট্টগ্রাম বন্দর বাংলাদেশের প্রধান সমুদ্রবন্দর। পার্বত্য চট্টগ্রামের উত্তর-পূর্বে পর্বতশ্রেণী থেকে উৎপন্ন এবং বঙ্গোপসাগরে পতিত কর্ণফুলী নদীর মোহনায় অবস্থিত। সমুদ্র হতে কয়েক মাইল অভ্যন্তরে গভীর সমুদ্রে নোঙ্গর করার সুবিধাই এ বন্দরের প্রধান বৈশিষ্ট্য। বঙ্গোপসাগরের বাইরের দিকে বালুচর হতে কর্ণফুলী নদীর পাড়ে প্রধান ঘাট পর্যন্ত চলমান দূরত্ব হচ্ছে ১৬ কিলোমিটার।

চট্টগ্রাম বন্দর

বন্দরের অবস্থান এবং এর স্বাভাবিক পোতাশ্রয় একে খ্রিস্টীয় নয় শতক হতে ব্যবসা-বাণিজ্যের এক গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে পরিণত করেছে। ঐসময় আরব বণিকদের নিকট এটি ছিল লাভজনক বাণিজ্য কেন্দ্র। পনেরো শতকের শুরু থেকেই চট্টগ্রাম বন্দর ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য কেন্দ্র। চৈনিক পর্যটক মাহুয়ান এক প্রতিনিধি দলের সঙ্গে ১৪০৫ সালে চট্টগ্রাম আসেন। তিনি চট্টগ্রামকে (চিট-লে-গান) একটি বন্দর হিসেবে উল্লেখ করেছেন যেখানে চৈনিক বাণিজ্যিক জাহাজ প্রায়শ যাতায়াত করত। ইউরোপীয়দের মধ্যে পর্তুগিজরাই প্রথম চট্টগ্রামে আগমন করে। পর্তুগিজরা প্রথমে জন দ্য সিলভিরার নেতৃত্বে ১৫১৭ সালে এবং পরে আলফন্সো দ্য মিলোর নেতৃত্বে ১৫২৭ সালে চট্টগ্রাম দখলের ব্যর্থ চেষ্টা করে। শেষ পর্যন্ত তারা শেরশাহ শূরের বিরুদ্ধে বাংলার সুলতান মাহমুদ শাহকে সাহায্য করার বিনিময়ে তার কাছ থেকে চট্টগ্রাম ও সাতগাঁওয়েরও অধিকার লাভ করে। পর্তুগিজদের অধীনে চট্টগ্রামের সমৃদ্ধি ঘটে এবং একটি বাণিজ্যিক কেন্দ্রে পরিণত হয়ে ‘পোর্টো গ্র্যান্ডে’ (‘porto grande’) বা বিশাল বন্দর নামে পরিচিত হয়। পক্ষান্তরে সাতগাঁও বন্দরের নামকরণ হয় ‘পোর্টো পেকুইনে’ (porto pequene)। ১৬৬৫-৬৬ সালে বাংলার মুগল সুবাহদার শায়েস্তা খান চট্টগ্রাম অভিযান করে অতর্কিত আক্রমণে বন্দরটি দখল করে নেন।

 

এ সময়ের মধ্যে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ১৬৫১ সালে হুগলিতে তাদের প্রথম কুঠি প্রতিষ্ঠা করে। তবে দীর্ঘকাল তা নিছক বণিকের অবস্থান নিয়ে সন্তুষ্ট ছিল না। কোম্পানি একটি সুরক্ষিত ঘাটি গড়ে তোলার চেষ্টা করে। কিন্তু সে ঘাঁটি কোথায় হবে সেটাই ছিল প্রশ্ন। উইলসন লিখেছেন, শিল্প-বাণিজ্যিক দৃষ্টিকোণ থেকে এর জন্য হুগলিই ছিল প্রকৃষ্ট স্থান, আর সামরিক উচ্চাভিলাষ উদ্বুদ্ধ করেছিল বলপূর্বক গুরুত্বপূর্ণ মুগল নগরী চট্টগ্রাম দখলে। কোর্ট অব ডাইরেক্টর্স ঘন ঘন পরামর্শ দিচ্ছিলেন এবং ১৬৮৫ সালে অ্যাডমিরাল নিকলসনের নেতৃত্বে ইংল্যান্ডে একটি অভিযানের প্রস্ত্ততি গ্রহণ করা হয়। নিকলসনের প্রতি নির্দেশ ছিল চট্টগ্রাম দখল করে ইংরেজদের জন্য এটিকে সুরক্ষিত করার। এ অভিযান কখনই চট্টগ্রাম পৌঁছায়নি। কিন্তু লন্ডনে কোর্ট অব ডাইরেক্টর্স তাদের এ মত কখনই পাল্টায় নি যে, চট্টগ্রাম দখল করতে পারলে উপসাগরে তাদের সব রকমের সুবিধা এসে যাবে। ১৬৮৯ সালের জানুয়ারি মাসে কোর্ট অব ডাইরেক্টর্স চট্টগ্রাম দখলের জন্য ক্যাপ্টেন হিথের নেতৃত্বে একটি নৌবহর প্রেরণ করে। তাদের এ দ্বিতীয় প্রচেষ্টাও ব্যর্থ হয়। হিথ চট্টগ্রাম দখলের অসুবিধাগুলি উপলব্ধি করেন এবং প্রায় এক মাসকাল সেখানে নোঙ্গর করে থাকার পর উদ্যোগটি পরিত্যক্ত হয়।

 

এ প্রত্যাগমন একটি ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। চট্টগ্রাম আরও একশ বছর বাংলার মুগল শাসকদের অধীনে থাকে। ইতোমধ্যে ইংরেজগণ মুগল সম্রাট আওরঙ্গজেব এর নিকট তাদের পূর্ব শত্রুতার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করায় ১৬৯০ সালে তাদের বাণিজ্যিক সুবিধার নবায়ন মঞ্জুর করা হয় এবং ১৬৯৮ সালে সুতানটি, কলকাতা ও গোবিন্দপুর গ্রাম তিনটির জমিদারি অধিকার প্রদান করা হয়। এর পর থেকেই কলকাতা ধীরে ধীরে ইতস্তত বিক্ষিপ্ত ঝোপঝাড় পরিবেষ্টিত নিচু ধানীজমি থেকে বিশাল বাণিজ্যকেন্দ্র এবং পূর্বাঞ্চলে একটি সাম্রাজ্যের রাজধানীতে পরিণত হয়।

 

এটা লক্ষণীয় যে, দু শতকের বেশিরভাগ সময় ধরে মুগল, পর্তুগিজ ও ইংরেজগণ ভারত সাগরের নৌবাণিজ্যের প্রধান বন্দর চট্টগ্রামকে নিজেদের আয়ত্তে আনার জন্য লোভাতুর হয়ে উঠেছিল। চট্টগ্রাম দখল করে সেখানে বসতি স্থাপনে ব্যর্থ হওয়ার ফলেই ইংরেজরা শেষ পর্যন্ত কলকাতায় ঘাঁটি স্থাপন করে। পরিকল্পনা বা লক্ষ্য নয়, প্রয়োজনীয়তাই ইংরেজদের কলকাতায় ঘাঁটি স্থাপন করতে বাধ্য করে। কলকাতায় ইংরেজ ঘাঁটি স্থাপন চট্টগ্রামের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনার দ্বার রুদ্ধ করে দেয়।

 

আঠারো ও ঊনিশ শতকে কলকাতা ক্রমান্বয়ে বাংলার প্রধান বন্দরে উন্নীত হয় এবং চট্টগ্রাম একটি উপবন্দর (feeder port) হিসেবে দ্বিতীয় অবস্থানে নেমে আসে। চট্টগ্রাম বন্দরের এ গুরুত্ব হ্রাস এবং এখানে বন্দর সুবিধার অনুপস্থিতি সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে এবং ১৮৮৮ সালে চিটাগাং পোর্ট ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠিত হয়।

 

চট্টগ্রাম বন্দরের জন্য প্রশাসনিক এবং নীতি নির্ধারণী ব্যবস্থা প্রণয়নের প্রথম প্রচেষ্টা ১৮৮৭ সালে গৃহীত হয় এবং ওই বছরই চিটাগাং পোর্ট কমিশনার্স অ্যাক্ট-এর অধীনে একটি পোর্ট ট্রাস্ট গঠন করা হয়। ১৮৮৭ সালে যেনতেন ভাবে ট্রাস্টের কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর বন্দরের কার্যাবলি ব্যবস্থাপনার জন্য বাংলা সরকারের ১৮৮৮ সালের ১৫ মে তারিখের ৩৫ ও ৩৬ নম্বর বিজ্ঞপ্তির দ্বারা বৈধভাবে পোর্ট ট্রাস্ট গঠিত হয়। ১৮৮৭ সালের চট্টগ্রাম পোর্ট কমিশনারস অ্যাক্টে নয় জন কমিশনারের বিধান রাখা হয়। এদের মধ্যে ছয়জন স্থানীয় সরকার কর্তৃক মনোনীত হবেন এবং তিনজন নির্বাচিত হবেন গভর্নর জেনারেলের কাউন্সিলের পূর্ব অনুমোদন অনুসারে বাংলা সরকারের মনোনীত স্থানীয় প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রতিনিধি সমন্বয়ে গঠিত নির্বাচক মন্ডলীর দ্বারা। কমিশনারদের কার্যকালের মেয়াদ দুবছর। মনোনীত ছয়জন সদস্যের সকলেই ছিলেন ইউরোপীয়। নির্বাচিত তিন সদস্য ছিলেন ভারতীয়। কালক্রমে বোর্ড গঠনে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন ঘটে এবং অংশত এর কারণ ছিল মনোনীত সদস্যের সংখ্যা বৃদ্ধি। কিন্তু প্রশ্নাতীতভাবেই ইউরোপীয়দের প্রাধান্য অব্যাহত থাকে এবং সরকার কর্তৃক মনোনীত নির্বাচকমন্ডলীতে পরিবর্তনের ফলে এ প্রাধান্য আরও জোরদার হয়। ১৮৮৭ সালের চিটাগাং পোর্ট কমিশনার্স অ্যাক্ট কমিশনারদের সীমিত ক্ষমতা প্রদান করে এবং পোর্ট ট্রাস্টকে ভারত সরকার ও বাংলা সরকারের দ্বৈত প্রশাসনিক ও অর্থনৈতিক নিয়ন্ত্রণে ন্যস্ত করে। কমিশনারদের সকল কার্যক্রম এবং কার্যপ্রণালী স্থানীয় সরকারের অনুমোদন সাপেক্ষ ছিল এবং স্থানীয় সরকার কমিশনারদের যে কোনো কাজ বা কার্যবিবরণী বাতিল, স্থগিত বা সংশোধন করতে পারত। ১৯০৩ সালে জেটিগুলির নিয়ন্ত্রণ ও প্রশাসন আসাম বেঙ্গল রেলওয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তখন থেকে পোর্ট ট্রাস্ট ও রেলওয়ে কোম্পানির মধ্যে কর্তৃত্বের বিভাজন প্রশাসনিক জটিলতার সৃষ্টি করে। পোর্ট ট্রাস্টের দায়িত্ব ছিল নদী সংরক্ষণ ও জাহাজ চলাচল নিয়ন্ত্রণ এবং রেলওয়ে কোম্পানির দায়িত্বে ছিল সমুদ্রগামী জাহাজের জেটিসমূহ ও উপকূলীয় সুযোগ সুবিধা। পোর্ট ট্রাস্ট বোর্ডে বহু সংখ্যক সদস্যের উপস্থিতিতে এর প্রশাসন চরমভাবে বিঘ্নিত হয়, এরা কেউ এর কাজে যথেষ্ট সময় ও মনোযোগ দেয় নি। চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার ছিলেন পোর্ট ট্রাস্ট পরিচালনার দায়িত্বপ্রাপ্ত পোর্ট কমিশনারদের চেয়ারম্যান। তার বহুমুখী কর্ম ব্যস্ততার কারণে পোর্টের দৈনন্দিন প্রশাসনের দায়িত্ব অন্য কারও উপর ন্যস্ত করার প্রয়োজন দেখা দেয়। ১৮৮৮ সালে পোর্ট ট্রাস্ট গঠিত হবার আগে একজন কর্মকর্তা চট্টগ্রাম বন্দরের প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করতেন যিনি একাধারে ছিলেন কাস্টম কালেক্টর ও পোর্ট অফিসার।

 

পোর্ট রেলওয়ে ও পোর্ট কমিশনার্সের দ্বৈত প্রশাসনের জন্য ১৯৬০ সালে জারিকৃত এক অধ্যাদেশ দ্বারা সংশোধিত ১৯১৪ সালের পোর্ট অ্যাক্টের বিধান অনুযায়ী ১৯৬০ সালের ১ জুলাই একটি আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা হিসেবে পোর্ট ট্রাস্ট পুনর্গঠিত হয়। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর বন্দরের ব্যবসা বাণিজ্যের ব্যাপক সম্প্রসারণ ঘটে। বন্দরের দ্রুত উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ মোকাবেলার জন্য বাংলাদেশ সরকার ১৯৭৬ সালে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ অধ্যাদেশ জারি করে এবং পোর্ট ট্রাস্ট ভেঙ্গে দেয়। তখন থেকে বন্দরের ব্যবস্থাপনা চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের অধীনে আসে।

 

বন্দরের সুযোগ সুবিধা উনিশ শতকের শেষার্ধে চট্টগ্রাম পোর্টে যাত্রীদের জন্য একটি এবং লবণ খালাসের জন্য কয়েকটি ছোট জেটি ছিল। তাদের কোনো পন্টুন বা ক্রেন ছিল না, ছিল না কোনো গুদাম। নিজেদের মালামাল রাখার জন্য কোনো গুদাম না থাকায় এদের অধিকাংশ খোলা জায়গায় পড়ে থাকত। চট্টগ্রামে সরকারি বা বেসরকারি কোনো কাঠের তৈরী ঘাটও ছিল না। একমাত্র লোহার জেটি ১৮৭৯ সালে সদরঘাটে নির্মিত হয়েছিল। বস্ত্তত এ জেটির তেমন কোনো উপকারিতা ছিল না, কারণ এটি জলের যথেষ্ট গভীরে প্রসারিত না থাকায় সমুদ্রগামী জাহাজের এবং এমনকি উপকূলে চলাচলকারী কোস্টারগুলিরও ব্যবহারোপযোগী ছিল না। ১৮৯১ সালে সরকারি লবণগোলা বা গুদাম ঘরের উল্টা দিকে চারটি লবণ জেটি নির্মিত হয়। এগুলি নিতান্তই ছিল ছোটখাট কাজ। তথাপিও চারটি লবণ জেটি নির্মাণ খুবই কাজে এসেছিল। পূর্বে জাহাজে লবণ বোঝাই কাজে নিয়োজিত লোকদের কোমর পর্যন্ত কাদায় ডুবিয়ে অতি কষ্টে লবণের বস্তা নিয়ে জাহাজ পর্যন্ত যেতে হতো। ১৮৮৮ সালে চট্টগ্রাম পোর্ট ট্রাস্ট গঠিত হবার সময় বন্দরে প্রয়োজনীয় যেসব উন্নয়ন কার্যক্রম চিহ্নিত করা হয়েছিল তার মধ্যে ছিল বন্দরের সঙ্গে সংযোগ পথে আলোর ব্যবস্থা, অগভীর বয়া অপসারণ, উপকূলবর্তী ভূমি অধিগ্রহণ ও নদী তীরবর্তী সড়ক নির্মাণ, নদী মোহনার সঙ্গে টেলিগ্রাফ সংযোগ প্রতিষ্ঠা, একটি বাষ্পচালিত টাগবোটের ব্যবস্থা করা, চিকিৎসক ও চিকিৎসা সংক্রান্ত কর্মচারী নিয়োগ এবং হাসপাতালের শয্যাসংখ্যা বাড়ানো ও স্থান সম্প্রসারণ।

 

এ তালিকা থেকে প্রতীয়মান হয় যে, বাংলা সরকার চট্টগ্রামকে একটি ছোট উপকূলীয় বন্দররূপে গড়ে তুলতে চেয়েছিল। জেটি নির্মাণ বা কর্ণফুলী নদীতে নৌযান চলাচলের প্রধান অন্তরায় ভেতর ও বাইরের দিকে জমাট বালুর চড়া ড্রেজিং করার বিষয়ে কোনো উল্লেখ ছিল না। অগভীর রিং বয়া অপসারণের প্রস্তাব অবশ্য ছিল, কিন্তু রিং বয়াটি ছিল উজানে সদরঘাট জেটির নিকটে, যা তখন উপকূলীয় নৌযান পরিচালনার যোগ্যও ছিল না।

দুটি উদ্যোগ এ অবস্থা পরিবর্তনে বাস্তব অবদান রাখে। একটি হচ্ছে আসামের চা-বাগানগুলির সঙ্গে চট্টগ্রাম বন্দরকে সংযুক্ত করে রেলপথ নির্মাণের জন্য ভারত সরকারের সিদ্ধান্ত এবং অপরটি হচ্ছে ১৯০৫ সালের বঙ্গভঙ্গ এবং পূর্ববঙ্গ ও আসাম নিয়ে নতুন প্রদেশ সৃষ্টি।

 

প্রশাসনিক দিক থেকে চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, ত্রিপুরা, সিলেট, কাছাড়, পার্বত্য ত্রিপুরা এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলাসমূহ মেঘনা নদীর পূর্বদিকে অবস্থিত এলাকার অর্ন্তভুক্ত ছিল। ১৮৯১ সালে এ জেলাগুলির মোট আয়তন ছিল ২৪,০৯০ বর্গমাইল এবং জনসংখ্যা ছিল ৫৫,৫৪,১৪৭। পাট, ধান ও চা উৎপাদনে এলাকাটি ছিল সমৃদ্ধ। জনবহুল এবং উর্বর এলাকা সত্ত্বেও এখানে এক মাইল রেলপথও ছিল না। বহু বছর যাবৎ চট্টগ্রাম বিভাগে একমাত্র রেলপথ ছিল হস্তচালিত ট্রামওয়ে। এ রেলপথ বরকলের নিকটে কর্ণফুলী নদীর প্রপাতের পাশ দিয়ে বন্দর এলাকার দেড় মাইলব্যাপী বিস্তৃত ছিল। ফলে চট্টগ্রাম যে পূর্ববঙ্গ ও আসামের উৎপাদনের বহির্গমনের প্রাকৃতিক পথ, চট্টগ্রামের অবস্থান রক্ষা না করা সত্ত্বেও প্রচুর পরিমাণ উৎপন্ন দ্রব্য বর্তমান বন্দর সুবিধার চেয়ে উন্নততর বহিঃর্পথের অপেক্ষায় ছিল।

 

চট্টগ্রামের পশ্চাদভূমির সঙ্গে এর বন্দরকে সংযুক্ত করার প্রয়োজনীয়তার প্রতি বিভিন্ন সময়ে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। ১৮৭৩ সালের দিকে চট্টগ্রামের কাস্টম কালেক্টর জল বা স্থলপথে অভ্যন্তরীণ পরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়নের উপর গুরুত্ব আরোপ করেছিলেন। অবশ্য এ ব্যাপারে কিছুই করা হয় নি। ঊনিশ শতকের মধ্যভাগ হতে পূর্ববঙ্গে পাট ব্যবসার উন্নয়নের ফলে মেঘনা নদী জরিপ ও নৌচলাচলের জন্য একে নিরাপদ বলে ঘোষণা করতে ব্যবসায়ীগণ বাংলা সরকারকে অনুরোধ জানায়, যাতে ভারতের ও বিদেশি বন্দরগুলি থেকে সমুদ্রগামী জাহাজ পূর্বাঞ্চলে উৎপাদিত পণ্যদ্রব্যের ব্যবসার জন্য নারায়ণগঞ্জে প্রবেশে সক্ষম হয়। ব্রিটেন হতে আগত জাহাজগুলির মেঘনা নদীতে চলাচল অত্যন্ত দুরূহ মনে করে বাংলা সরকার ঘোষণা দেয় যে, পূর্বাঞ্চলীয় জেলাগুলির উৎপাদিত পণ্যের চালানের জন্য চট্টগ্রাম সবচেয়ে সুবিধাজনক বন্দর বিধায় উৎপাদিত পণ্য স্টিমারে টানা টাগবোটে করে মেঘনা নদী পথে চট্টগ্রাম পাঠানো হবে। চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহার করার প্রস্তাব একবার উত্থাপিত হওয়ায় আরও তদন্ত ও আলোচনা অনুষ্ঠিত হয় এবং ১৮৮১ সালে বিকল্প হিসেবে চট্টগ্রাম হতে দাউদকান্দি পর্যন্ত একটি রেলপথ নির্মাণের পরিকল্পনা গুরুত্বসহকারে বিবেচনায় আনা হয়। ১৮৮২ সালে ঢাকা ও চট্টগ্রামের কমিশনারগণ অনুরূপ একটি রেলপথ নির্মাণের পক্ষে দৃঢ় সমর্থন ব্যক্ত করে প্রতিবেদন পেশ করেন। একই বছর বাংলার ছোটলাট মত প্রকাশ করেন যে, চট্টগ্রামকে এর পশ্চাদ্ভূমির সঙ্গে সংযুক্ত করে রেলপথ নির্মিত হলে ‘গুরুত্বের দিক হতে এটা হবে বাংলায় অদ্বিতীয়’। ১৮৮২ সালের জুন মাসে বাংলা সরকার চট্টগ্রাম হতে দাউদকান্দির পরিবর্তে চাঁদপুর পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের জন্য ভারত সরকারের নিকট এক পরিকল্পনা পেশ করে।

 

প্রায় একই সময়ে ভারত সরকারও রেলপথ নির্মাণের মাধ্যমে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকাকে উন্মুক্ত করার গুরুত্ব আলোচনা করছিল। তিনটি বিকল্প পথ বিবেচনা করা হয়। প্রথমটি ছিল একটি রেলপথ নির্মাণ করে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকাকে নর্দান-বেঙ্গল রেলওয়ের সঙ্গে যুক্ত করা। কিন্তু ব্রহ্মপুত্র নদীতে অপ্রতিরোধ্য জলস্রোতে সেতু নির্মাণ এবং নদী শাসন দুরূহ বিবেচনা করে এ পরিকল্পনা গ্রহণ করা যায় নি। পরবর্তী প্রস্তাব গোয়ালন্দের বিপরীত কোনো স্থান হতে ঢাকা হয়ে ময়মনসিংহ পর্যন্ত একটি রেলপথ নির্মাণ কর্তৃপক্ষকে ঢাকা-ময়মনসিংহ লাইন সম্প্রসারিত করে গারো পাহাড়ের মধ্য দিয়ে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকায় নিয়ে যাবার সম্ভাব্যতা যাচাই করতে উদ্বুদ্ধ করে। তৃতীয় সম্ভাবনাটি পূর্বোল্লিখিত পূর্ববঙ্গ-চট্টগ্রাম রেলপথের আলোচনার মাধ্যমে সূচিত হয়। সে সময়ে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকায় রেলওয়ে জরিপ কার্যের প্রধান প্রকৌশলী জে.ডব্লিউ বায়ার্স (JW Buyers) ১৮৮২ সালে পূর্ববঙ্গের মধ্য দিয়ে উত্তর কাছাড় পর্বতশ্রেণী অতিক্রম করে চট্টগ্রাম বন্দর হতে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকা পর্যন্ত রেলপথের সম্প্রসারণের প্রস্তাব উত্থাপন করেন। তিনি কলকাতার চেয়েও চট্টগ্রাম বন্দরের কিছু সুনির্দিষ্ট সুবিধার বিষয় উল্লেখ করেন। তিনি প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন যে, ‘বাণিজ্য চট্টগ্রামমুখী হবে’ এবং এতদুপলক্ষে বন্দরটির সংগে সংযোগ স্থাপনকে তিনি খুবই গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন। ১৮৮২ সালে থেকে চট্টগ্রাম হতে আসাম পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ ভারত সরকারের মনোযোগ আকর্ষণ করে। ১৮৮৫-১৯৮৬ ও ১৯৮৭ সালে অনুসন্ধান চলাকালে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকাকে চট্টগ্রাম বন্দরের সঙ্গে সংযুক্ত করার সুবিধা এতই সুস্পষ্ট প্রতীয়মান হয় যে, ১৮৯১ সালের মে মাসে ভারত সরকার উত্তর আসাম হতে চট্টগ্রাম বন্দর পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের মঞ্জুরি প্রদান করে। পূর্ববঙ্গ ও আসাম উভয়ের প্রয়োজনেই আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ে নির্মিত হয়।

কাজেই বলা যায় যে, তিনটি প্রধান লক্ষ্যকে সামনে রেখে রেলপথটি নির্মিত হয়েছিল: নিকটতম বন্দরের সঙ্গে যোগাযোগ সুবিধা প্রদান করে পূর্ববাংলার বাণিজ্যিক সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করা, স্থলপথে যোগাযোগ সহজতর করে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার উন্নয়ন সাধন, কলকাতার সঙ্গে দীর্ঘ জলপথের যোগাযোগের পূর্ণ নির্ভরতা হ্রাস করে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকা, সিলেট ও কাছাড়ে চা-শিল্পের আরও উন্নয়নের সুবিধা প্রদান।

 

আসাম বেঙ্গল কোম্পানি গঠিত হওয়ার পরপরই চট্টগ্রাম বন্দরে পর্যাপ্ত ও স্থায়ী অবতরণ সুবিধার প্রতি ভারত সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে ওই দাবির ফলে এতদুদ্দেশ্যে কাজ শুরু করা হয় যার ফলে উপকূলীয় ভূমি অধিগ্রহণ, জেটি নির্মাণ এবং সমুদ্রগামী জাহাজগুলিকে বন্দরে স্থান দেবার জন্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য সুবিধাদির ব্যবস্থা করা হয়।

 

১৮৮৭ সালের চিটাগাং পোর্ট কমিশনার্স অ্যাক্টের ১৯ ধারায় পোর্ট কমিশনারদের ঘাট ও জেটি নির্মাণের জন্য ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষমতা প্রদান করা হয়। প্রায় চার বছর পর আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ে কোম্পানির আগমনের পর পোর্ট কমিশনারগণ এ বিষয়ে সচেতন হয়ে ওঠেন যে, সমুদ্রগামী জাহাজের উপযোগী জেটি নির্মাণের জন্য তাদের উপকূলীয় ভূমি নেই। অতএব ১৮৯২ সালের আগস্ট মাসে ট্রাস্ট পণ্যাগার ও জেটি নির্মাণের জন্য কর্ণফুলী নদীর পশ্চিম তীরে ৩৫০০ ফুট দীর্ঘ ও ৬৬০ ফিট প্রস্থবিশিষ্ট একখন্ড ভূমি অধিগ্রহণের অনুমোদনের জন্য বাংলা সরকারের নিকট আবেদন জানায়। কমিশনারগণ উল্লেখ করেন যে, প্রার্থিত ভূমিতে মাত্র চারটি জাহাজ রাখার স্থান সংকুলান হবে এবং অনতিবিলম্বে নদীর সম্মুখদিকে ব্যাপক এলাকা অধিগ্রহণ করা প্রয়োজন। এর জন্য তারা আরও বড় অঙ্কের ঋণ অনুমোদনের আবেদন জানান। ইতোমধ্যে রেলওয়ের উপদেষ্টা প্রকৌশলীও তীর সম্মুখস্থ, দৈর্ঘ্যে ৮০০০ ফুট এবং প্রস্থে ১৫০০ ফুট, ভূমি অধিগ্রহণের নিমিত্ত নোটিশ প্রদানের জন্য সরকারের নিকট একটি প্রস্তাব প্রেরণ করেন। প্রস্তাবগুলি পাওয়ার পর চট্টগ্রামে মাল খালাস ও জাহাজযোগে প্রেরণের উপযুক্ত ব্যবস্থাদি গ্রহণের বিষয়ে প্রতিবেদন পেশ করার জন্য ১৮৯৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বাংলা সরকার একটি কমিটি নিয়োগ করে। ১৮৯৩ সালের মে মাসে এ কমিটি প্রস্তাব দেয় যে, কমপক্ষে ৬টি জাহাজের জন্য জেটির (প্রতিটির জন্য ৫০০ ফুট করে) ব্যবস্থা করা উচিত এবং বন্দর ও রেলওয়ের যৌথ প্রয়োজনে ডবল মুরিং জেটি হতে গুপ্তখালি খালের মোহনা পর্যন্ত ২০০০ ফুট চওড়া জমি সংগ্রহ করতে হবে।

বাংলা সরকার এ কমিটির বক্তব্য ভারত সরকারের কাছে প্রেরণকালে মত প্রকাশ করেন যে, তীরবর্তী সমগ্র ভূমি, চট্টগ্রামের সকল ঘাট ও জেটি পোর্ট ট্রাস্টের মালিকানায় থাকবে এবং ট্রাস্টই গুদামঘর, মাল খালাস ও মালবোঝাই কাজ নিয়ন্ত্রণ করবে এবং রেলওয়ে কোম্পানিকে যথাযথ অধিকার ও সুযোগ-সুবিধা প্রদান করবে। বাংলা সরকার আরও উল্লেখ করেন যে, এ দূরদর্শী পরিকল্পনার জন্য ভারত সরকার ঋণ আকারে অর্থ সরবরাহ করবে। পরিকল্পনাটির আর্থিক সংশ্রব নির্ণয় করার জন্য ভারত সরকার একটি কমিটি গঠনের সুপারিশ করে। এ সুপারিশ পরিকল্পনাটির জন্য বিপর্যয় ডেকে আনে। অর্থ বিভাগের সহকারী সচিব জে.ই ও’ কোনোর এবং কলকাতা পোর্ট ট্রাস্টের ভাইস-চেয়ারম্যান ও প্রধান প্রকৌশলী জে.এইচ অ্যাপজন এ দুজন বিশেষজ্ঞ সমন্বয়ে কমিটি গঠিত হয়। প্রথম জন আর্থিক বিধিমালা চরম কঠোরতার সঙ্গে প্রয়োগ করেন এবং অ্যাপজন তার নিজের বন্দর কলকাতার প্রতিদ্বন্দ্বী এ বন্দরের শ্রীবৃদ্ধি নিরোধ করতে না পারলেও সীমিত করতে সাধ্যমত চেষ্টা করেন। এ দুই বিশেষজ্ঞ তাদের প্রতিবেদনে মত প্রকাশ করেন যে, রেলপথ চালু হওয়া থেকে অন্তত বিশ বছরের জন্য দুটি জাহাজের ঘাট সুবিধা প্রদানই বাণিজ্যিক চাহিদা পূরণে যথেষ্ট হবে। স্মরণ করা যেতে পারে যে, পোর্ট কমিশনারগণ চারটি এবং বাংলা সরকারের কমিটি ছয়টি ঘাটের জন্য আবেদন জানিয়েছিলেন। তারা ভবিষ্যতে বাণিজ্য বৃদ্ধি বা ভবিষ্যতে ভূমির প্রয়োজন সম্পর্কে আগাম ধারণার বিরুদ্ধেও মত প্রকাশ করেন। তারা অবশ্য সুপারিশ করেন যে তীরবর্তী ভূমি পর্যন্ত রেলওয়ের প্রবেশাধিকার এবং মালামাল খালাস ও গুদামজাত করার সুযোগ সুবিধা থাকা উচিত। রেলওয়ের দ্রব্য সামগ্রী খালাসের নিমিত্ত পাকা মঞ্চ নির্মাণের জন্য ১৫০০ বা ১৬০০ ফুট দীর্ঘ এক খন্ড ভূমি অধিগ্রহণের অনুমতি কোম্পানিকে দেওয়া যেতে পারে, তবে শর্ত থাকে যে যদি কখনও পোর্ট ট্রাস্ট এ ভূমি এবং এর উপর নির্মিত পাকা মঞ্চ নিজেদের আয়ত্তে নেওয়া প্রয়োজন মনে করে তাহলে রেলওয়ে কোম্পানিকে অর্থ প্রদান করে তারা তা নিতে পারবে। ভারত সরকার কমিটির সুপারিশ গ্রহণ করেন এবং রেলওয়ে কোম্পানির ভূমি অধিগ্রহণে সম্মত হয়। কিন্তু এ মতের প্রতি অটল থাকে যে, পোর্ট ট্রাস্ট বন্দরে মাল খালাস ও মাল বোঝাইয়ের সকল কাজ সম্পাদন করবে এবং সাধারণ রেলওয়ে পরিবহনের জন্য প্রয়োজনীয় মঞ্চ বা জেটির ব্যবস্থা পোর্ট ট্রাস্ট করবে এবং পোর্ট তহবিল থেকে এর ব্যয় নির্বাহ করা হবে। চট্টগ্রাম বন্দরের জন্য তীরভূমি অধিগ্রহণে ভারত সরকারের কার্যক্রম নির্ধারণের ক্ষেত্রে ও’ কোনোর ও অ্যাপজনের রিপোর্ট ছিল। যখন দেখা গেল যে, পোর্ট ট্রাস্ট জেটি নির্মাণের জন্য অর্থায়ন করতে পারছে না তখন ভারত সরকার তার পক্ষে এবং সরকারি ব্যয়ে কাজটি সম্পন্ন করতে রেলওয়ে কোম্পানিকে নির্দেশ প্রদান করে। রাজকীয় তহবিল হতে জেটিগুলির নির্মাণের ব্যবস্থা করা হয় এবং তা সরকারি সম্পত্তিতে পরিণত হয়। জেটিগুলির নিয়ন্ত্রণ পোর্ট কমিশনারদের উপর ন্যস্ত করা হয় এবং বস্ত্তত তারা সরকারের এজেন্টে পরিণত হয়। অবশ্য ব্যবস্থাপনা আসাম বেঙ্গল রেলওয়ের হাতে থেকে যায়। জেটিগুলির ব্যবস্থাপনা সম্প©র্ক আলোচনা চলাকালে ডবল মুরিং-এ প্রথম জেটিটি নির্মিত হয় এবং ১৮৯৯ সালে চালু করা হয়। ১৯০২ সালের মে মাসে বাংলা সরকার দ্বিতীয় জেটি নির্মাণের অনুমোদন প্রদান করে। ১৯০৪-১৯০৫ সালে জেটিটি পূর্ণভাবে চালু হয়। ইতোমধ্যে আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ে কোম্পানি ভারত সরকারকে বোঝাতে সক্ষম হয় যে, পোর্টের জেটিগুলির মালিকানা ও নিয়ন্ত্রণ রেলওয়ের নিকট হস্তান্তর করা উচিত এবং ১৯০৩ সালের ২৭ মার্চ জেটিগুলি রেলওয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ভারত সরকার অবশ্য জেটিগুলি পুনর্গ্রহণের অধিকার সংরক্ষণ করেন। ১৯০৩ সালে জেটিগুলি রেলওয়ের কাছে হস্তান্তরের সঙ্গে সঙ্গে চট্টগ্রাম বন্দরের ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়। কারণ এ হস্তান্তর রেলওয়ের কার্যক্রমকে সহায়তা করলেও বন্দরের উন্নয়নের ক্ষেত্রে এটি ক্ষতিকর প্রমাণিত হয়। তখন থেকে চট্টগ্রাম বন্দর কমবেশি কোম্পানির একচেটিয়া বাণিজ্যাধিকারে পরিণত হয় এবং প্রাত্যহিক কাজকর্মে পোর্ট কমিশনারদের তেমন কোনো ভূমিকাই ছিল না।

 

অতি শীঘ্র দেখা যায় যে, বন্দরের বাণিজ্যিক চাহিদা মেটাতে দুটি জেটি যথেষ্ট নয়। সর্বমোট পাঁচটি জেটির জন্য একটি পরিকল্পনা ইতোমধ্যেই ভারত সরকারের বিবেচনাধীন থাকায়, তৃতীয় জেটি নির্মাণের অনুমোদন প্রদান করা হয় এবং ১৯০৬-০৭ সালে রেলওয়ের কাজ হিসেবে জেটিটি নির্মিত হয়। পরবর্তী সময়ে অবশ্য পরিচালনা পর্ষদ উপলব্ধি করে যে, পাঁচটি জেটি বন্দরের জন্য অপর্যাপ্ত হবে এবং তারা একমত হন যে, মোট সাতটি জেটির প্রয়োজন। এগুলি এক সঙ্গে নির্মাণ না করে পরিবহন সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গতি রেখে জেটিগুলি নির্মাণের জন্য এজেন্ট একটি পরিকল্পনা পেশ করে।

 

ব্রিটিশ আমলে ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গের ফলে বন্দরটির ইতিহাসে সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় সূচিত হয়। বঙ্গ বিভাগের পূর্বে ভারতের তৎকালীন ভাইসরয় লর্ড কার্জন বঙ্গ বিভাগের পক্ষে সমর্থন আদায়ের জন্য পোর্ট কমিশনারদের আর্থিক সাহায্য দানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। বন্দরের সুযোগ সুবিধা উন্নয়নের জন্য (জেটিগুলি ছাড়া, যার অর্থায়ন করা হয়েছিল রেলওয়ে উন্নয়ন বাজেট হতে) কার্জনের প্রতিশ্রুতি মতো রাজকীয় বাজেট হতে দশ লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করা হয়। রাজকীয় বাজেট হতে আরও অনুদানের জন্য দাবি ১৯১০ সাল পর্যন্ত অব্যাহত ছিল এবং ওই বছর আরও পাঁচ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা মঞ্জুর করা হয়। বন্দরের দ্রুত উন্নয়ন কাজে খুব শীঘ্রই এ অর্থ ব্যয় হয়ে যায়।

 

নতুন প্রদেশ পূর্ববাংলা ও আসামের সরকার এর প্রধান বন্দরের প্রতি যথার্থ গুরুত্ব আরোপ করে এবং নিজস্ব উৎস হতে উল্লেখযোগ্য তহবিল নিয়ে বন্দরের উন্নয়নের কাজে হাত দেয়। ১৯০৭ সালে তারা নিম্নলিখিত আর্থিক প্রতিশ্রুতি প্রদান করে: (ক) ১৯০৭ হতে রিবেটমেন্টে সর্বোচ্চ নয় লক্ষ টাকার অর্ধেক অর্থ বিনিয়োগ (রিবেটমেন্ট ও ড্রেজারের জন্য প্রাক্কলিত মোট ত্রিশ লাখ ব্যয়ের উপর); চূড়ান্ত মোট ব্যয়ের হিসাব ত্রিশ লাখ অতিক্রম করলে বর্ধিত প্রাদেশিক সাহায্যের প্রস্তাব ঔদার্য্য সহকারে বিবেচিত হবে; (খ) ড্রেজারের পরিচালনা ব্যয় বাবদ পাঁচ বছরের জন্য বছরে ৫৯,৬২৪ টাকা পর্যন্ত প্রাদেশিক অনুদান।

 

পূর্ববাংলা ও আসাম প্রদেশের নতুন সরকার জেটিগুলির নিয়ন্ত্রণ ফিরে পেতে ব্যর্থ চেষ্টা করে। পূর্ববঙ্গ ও আসাম বিভাগ ১৯১১ সালে বাতিল করা হয়। নতুন সরকার কর্তৃক বন্দরের উন্নয়নে গৃহীত উদ্যোগের অবসান ঘটে। বঙ্গভঙ্গ রদের ফলে চট্টগ্রাম বন্দরের মর্যাদা একটি প্রদেশের প্রধান বন্দর হতে কলকাতার সহায়ক বন্দর না হলেও দ্বিতীয় অবস্থানে চলে আসে এবং তা ঘটে এমন এক সরকারের অধীনে যে সব সময়ই পরবর্তী বন্দরের স্বার্থকে চট্টগ্রামের আগে বিবেচনা করত। বঙ্গ-বিভাগ বাতিলকরণের ফলে বন্দর উন্নয়নের জন্য সরকারি তহবিলের সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। মেঘনা নদীর পশ্চিম তীরবর্তী স্থানগুলির সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে ১৯০৬ সালে গৃহীত সাতটি জেটি নির্মাণের পরিকল্পনা পরিত্যক্ত হয়। ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত চতুর্থটির পরে আর কোনো জেটি নির্মিত হয় নি। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর চট্টগ্রাম পূর্ব পাকিস্তানের প্রধান বন্দরে পরিণত হয় এবং এর যথাযোগ্য ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য ব্যাপক প্রচেষ্টা চালানো হয়। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর চট্টগ্রাম বন্দর দেশের প্রধান বন্দর হিসেবে এর প্রাপ্য মর্যাদা লাভ করে। ১৯৯৯ সালের জুন মাসের মধ্যে এর জেটি সংখ্যা ২২ পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়।

 

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ বর্তমান প্রশাসনিক কাঠামো একজন চেয়ারম্যান ও চারজন সদস্য নিয়ে বর্তমান চট্টগ্রাম কর্তৃপক্ষের প্রশাসনিক কাজ পরিচালিত হয়ে থাকে। এ প্রশাসনিক কাঠামোর মধ্যে- বন্দরে কর্মরত সকলে সরকার কর্তৃক নিয়োগপ্রাপ্ত; প্রশাসনের অধীনে মোট বিভাগ রয়েছে পনেরোটি (১৫); মোট (অনুমোদিত) কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংখ্যা ৮৬৫৫ জন; বর্তমানে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংখ্যা ৫৭৮৪ জন।

 

বন্দর কর্তৃপক্ষের চার জন সদস্য চারটি নির্বাহী বিভাগের প্রধান। বিভাগসমূহ হলো:

 

সদস্য – প্রকৌশল

 

সদস্য – পোতাশ্রয় ও জাহাজ

 

সদস্য – অর্থ

 

সদস্য – প্রশাসন ও পরিকল্পনা

 

তাছাড়াও যান নিয়ন্ত্রণ ও নিরাপত্তা রক্ষার জন্য রয়েছে পৃথক বিভাগ।

 

চট্টগ্রাম বন্দরের ৪৫,৫৩৯ বর্গমিটার আয়তনের একটি অঙ্গন আছে এবং এর কন্টেইনারের ধারণ ক্ষমতা ১০০০ টি.ই.ইউ.এস। এর একটি টাগ বহর রয়েছে যার সর্বোচ্চ শক্তি ২২৫০ বি.এইচ.পি এবং ২৫০০ ঘনমিটার ক্ষমতাসম্পন্ন হোপার ড্রেজার আছে। ২০০৯ সালের জুন পর্যন্ত পনের লক্ষ টন পণ্যসহ বন্দরটি বার্ষিক এক কোটি পঁচাশি হাজার টন পণ্য খালাস করেছে

আরো পড়ুন…..

চ্যালেঞ্জঃ_দ্যা_হিডেন_মিনিং_অব_লাইফ

পরিচালক আমাদের তার ইচ্ছে মতো ব্যবহার করে: দীঘি!

একটা মেয়ে কষ্ট পেয়ে। নিজের জীবনকে তিনভাবে এগুতে পারে

১১৬ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার আটক ২ জন!


সংবাদটি শেয়ার করুন: ধন্যবাদ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


One thought on "চট্টগ্রাম বন্দরের পরিচিতি ।"

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর


ফেসবুকে আমরা


© স্বত্ব সংরক্ষিত© ২০২০ এভরিডে নিউজ বিডি
Theme Customized BY Theme Park BD